মঙ্গলবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Bengali Bengali English English

শিরোনাম

আদালত ডেস্ক:

ঢাকার মগবাজারে একটি আবাসিক হোটেল থেকে শ্যালিকা বৃষ্টির লাশ উদ্ধারের ঘটনায় দুলাভাই সুমনের (২৬) পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বুধবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা থানার সাব-ইন্সপেক্টর মো. মিজানুর রহমান আসামি সুমনকে আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালতে সুমনের পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না।
শুনানি শেষে বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম আসাদুজ্জামান নূর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রাজধানীর মিরপুরের পাইকপাড়া থেকে গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সুমনকে গ্রেফতার করে র্যাব।

মামলার এজাহারে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে বৃষ্টি ও সুমন নিজেদের পরিচয় লুকিয়ে প্রিয়া ও রিয়াজ নামে স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে মগবাজারের হোটেল বৈকালীতে উঠেন। কিছুক্ষণ পর রিয়াজ নাশতা আনার কথা বলে বের হয়ে ঘণ্টা খানেক পর আসেন। এর কিছুক্ষণ পর রিয়াজ হোটেলের লোকজনকে বলেন, প্রিয়া গলায় ফাঁস দিয়েছে। হোটেলের লোকজন এলে রিয়াজ নিজেই ঝুলন্ত অবস্থায় প্রিয়াকে উপর থেকে নামিয়ে মাথায় পানি দিতে থাকেন। একপর্যায়ে কৌশলে রিয়াজ সেখান থেকে পালিয়ে যান। সুমন একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের গাড়িচালক। বৃষ্টি তেজগাঁও এলাকায় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করতেন।

এ ঘটনায় বৃষ্টির বাবা আনোয়ার হোসেন মঙ্গলবার রমনা থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় তিনি অভিযোগ করেন, বৃষ্টিকে ফুঁসলিয়ে ও প্রলোভন দেখিয়ে তার সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলে সুমন।

এ বিষয়ে কয়েকবার পারিবারিকভাবে সুমনকে সতর্ক করা হয়। গত ১৬ জুলাই সকাল ৮টার দিকে বৃষ্টি বাসা থেকে তার কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে বের হয়। সাড়ে ৯টার দিকে সুমন ফোন দিয়ে জানায় বৈকালী হোটেলে বৃষ্টি মারা গেছে। সুমনসহ অজ্ঞাতনামা আসামিরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে পরস্পর যোগসাজশে মগবাজার বৈকালী হোটেলে এনে হত্যা করে বলে অভিযোগ তার।

আপনার প্রতিষ্ঠানের বা পণ্যের বিজ্ঞাপন দিয়ে অনলাইন প্রকাশনাকে উৎসাহিত করুন। বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুনঃ

ই-মেইলঃ dainikteknafnews85@gmail.com

ফোনঃ 01815542234

এ ওয়েবসাইটের কোন ছবি বা নিউজ অনুমতি ছাড়া নকল বা প্রকাশ করা সম্পূর্ন বেআইনী ।

সুমন রেজা, টেকনাফ

অফিস: আল-জামেয়া মার্কেট,  টেকনাফ, কক্সবাজার,

যোগাযোগঃ 01815542234